এস কে আলীম,কপিলমুনি খুলনা। কপিলমুনির বিরাশী গ্রামের এক দিনমজুর ও তার ছেলে একটি ষড়যন্ত্র ও মিথ্যা মামলার শিকার হয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। ফলে পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ওই ব্যক্তি পালিয়ে থাকার কারণে তার পরিবারের সদস্যরা মানবেতর জীবন যাপন করছে। বিষয়টির সুষ্ঠ তদন্ত ও প্রতিকার চেয়ে দিনমজুর শাহজান মোড়ল গত-১৯ জুলাই কপিলমুনি নিউজ প্লেসে একটি সংবাদ সম্মেলন করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, পাইকগাছা উপজেলার আলমতলা গ্রামের বৃদ্ধ মোস্তফা গাজী উপজেলার বিরাশী মৌজায় তার এস এ-৩৭৮ খতিয়ান, দাগ নং-৭১২ ও একই মৌজায় -৩৩২ সি এস খতিয়ানের -৭৭০ দাগের মধ্যে মোট ০.১৭৬৬ একর জমির বিরোধ থাকায় বিরাশী গ্রামের জব্বার গাজী ও মোসলেম গাজী গং এর বিরুদ্ধে পাইকগাছা উপজেলা সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। কিন্তু শারিরীক অসুস্থতার কারণে মামলা দেখভাল করার জন্য মোস্তফা গাজী দিনমজুর শাহজান মোড়লকে আমমোক্তার নামা লিখে দেন। এর পর নালিশী সম্পত্তিতে জব্বার গাজী পাকা ইমারত নির্মাণ করতে গেলে আদালতের নির্দেশে তা বন্ধ হয়ে যায়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে জব্বার গাজী ও মোসলেম গাজীর পোষ্য একই গ্রামের তৈয়েবুর রহমান লালনকে দিয়ে গত ৯ জুলাই দিনমজুর শাহাজান ও তার আংশিক বুদ্ধি -প্রতিবন্ধী একমাত্র ছেলে মোবারক (২০) কে আসামী করে পাইকগাছায় থানায় একটি ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দায়ের করে। মামলা নং-১২/১৬৬। সংবাদ সম্মেলনে তিনি কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন,মামলা করার পরপরই বাদী তৈয়েবুর রহমান লালন ও বাদীর পিতা মাহতাব সরদার তার বাড়িতে যেয়ে তার পরিবারের সদস্যদের নানা রকম ভীতি প্রদর্শন করে। এমনকি তার আংশিক বুদ্ধি প্রদিবন্ধী ছেলেকে মৃত্যূর হুমকিও দিয়ে আসে। এ ঘটনায় শাহাজানের পরিবারের মধ্যে উৎকন্ঠা ও ভীতি বিরাজ করছে। দিন মজুর শাহাজান ও তার ছেলে পুলিশের গ্রেফতারের ভয়ে পালিয়ে থাকার কারণে তার পরিবারের সদস্যরা চরম আতংকের পাশাপাশি খেয়ে না খেয়ে দিনযাপন করছে। ন্যায়-বিচারের স্বার্থে মিথ্যা মামলা কারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন সহ মামলাটি খতিয়ে দেখতে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্থক্ষেপ কামনা করেন দিনমজুর শাহাজান।