আনিছুর রহমান মিলন সাতক্ষীরাঃহিজরি ৬১ সনের ১০ মহররম মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর দৌহিত্র হযরত ইমাম হোসেইন (রা.) ও তার পরিবারের সদস্যরা এবং অনুসারীরা সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে যুদ্ধ করতে গিয়ে ফোরাত নদীর তীরে কারবালা প্রান্তরে ইয়াজিদ বাহিনীর হাতে শহীদ হন।

মর্মস্পর্শী এ ঘটনা স্মরণ করে প্রতি হিজরি সনের ১০ মহররম বিশ্বের মুসলিম সম্প্রদায় যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় শোকাবহ দিনটি পালন করে থাকে। শান্তি ও সম্প্রীতির ধর্ম ইসলামের মহান আদর্শকে সমুন্নত রাখতে তাদের এই আত্মত্যাগ মানবতার ইতিহাসে সমুজ্জ্বল হয়ে রয়েছে।

কারবালার এই শোকাবহ ঘটনা ও পবিত্র আশুরার শাশ্বত বাণী সকলকে অন্যায় ও অত্যাচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে এবং সত্য ও সুন্দরের পথে চলতে প্রেরণা যোগায়।

পবিত্র আশুরা উপলক্ষে ৯ আগস্ট মঙ্গলবার, শ্যামনগর উপজেলার নূরনগর গুলশানে যাহারা ইমাম বাড়িতে শোক মজলিস ও শোক মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নূরনগর শিয়া মসজিদ এর সম্মানিত সভাপতি অবসরপ্রাপ্ত সেনাবাহিনীর সার্জেন্ট শেখ রওশান আলম এর সভাপতিত্বে উক্ত শোক মজলিস এ বক্তব্য প্রদান করেন, কাজী শামসুদ্দিন, এ্যাড কাজী শাহ নেওয়ার, কুরআন ও হাদিস থেকে মূল্যবান আলোচনা করে নূরনগর শিয়া মসজিদ এর পেশ ইমাম মাওলানা সাজিদুল ইসলাম।

বেদনাবিধুর কারবালার স্বরণে শোক নওহা পাঠ করেন, শেখ হাবিবুল আলম হবি, শেখ জুলফিকার আলি, তৌকির হাসান সোহাগ, নাদিম সারওয়ার।

উক্ত শোক মজলিস এ শ্যামনগর থানা পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিলো চোখে পড়ার মতো।